কাবুলে তালেবানের অবস্থানে বৈশ্বিক প্রতিক্রিয়া

 

আফগানিস্তানের বিভিন্ন স্থানের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার গতিতে রোববার কাবুলে এসে পৌঁছেছে তালেবান। আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির কাবুল ছাড়ার পর পর ইতোমধ্যেই শহরে প্রবেশ করেছে তালেবান যোদ্ধারা।

মার্কিন সৈন্যদের আফগানিস্তান থেকে প্রত্যাহারের মধ্যেই তালেবান যোদ্ধারা দেশটির বিভিন্ন প্রদেশের নিয়ন্ত্রণ নেয়া শুরু করে। পরে বিদ্যুৎ গতিতে তারা কান্দাহার ও হেরাত শহর দখল করে নেয়। আফগানিস্তানের কান্দাহার ও হেরাত শহর যথাক্রমে দেশটির দ্বিতীয় ও তৃতীয় বৃহত্তম শহর। পশ্চিমা দেশগুলো তালেবানের অগ্রগতিতে আফগান সৈন্যদের এমন শোচনীয় পরাজয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছে।

তালেবান কর্তৃক আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার এই সম্ভাবনায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রতিক্রিয়াগুলো নিম্নে বিবৃত করা হচ্ছে।

পাকিস্তান

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জাহিদ হাফিজ চৌধুরী দেশটির জিও নিউজ টিভিকে বলেন, 'আমরা আফগানিস্তানের বিপর্যস্ত অবস্থা নিয়ে চিন্তিত .......তবে আমরা আমাদের দূতাবাস বন্ধের কোনো সিদ্ধান্ত নেইনি।'

ইউরোপীয় ইউনিয়ন

ইউরোপীয় ইউনিয়নের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্গারিটিস স্কিনাস তার টুইটার অ্যাকাউন্টে বলেন, 'আমাদেরকে অভিবাসন ও আশ্রয় আইন করার চেষ্টা করার সময় দ্রুত ফুরিয়ে আসছে।'

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

কাবুলে তালেবান যোদ্ধাদের প্রবেশ করার বিষয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন রোববার এক বিবৃতিতে বলেন, 'আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনী যদি এক বছর বা পাঁচ বছরের বেশি সময়ও থাকত তবুও পরিস্থিতির কোনো পরিবর্তন হতো না। মার্কিন প্রচেষ্টা সত্ত্বেও আফগান বাহিনী তাদের দেশ রক্ষা করতে পারত না। কোনো দেশের গৃহযুদ্ধের মধ্যে মার্কিন বাহিনী দিনের পর দিন অবস্থান করুক এটা আমি চাই না।'


রাশিয়া

রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা জামির কাবুলভ বলেন যে তার দেশ জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের অধিবেশনে আফগান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করবে। তারা ওই অধিবেশন নিয়েই কাজ করছেন।

রুশ কর্মকর্তা জমির কাবুলভ আরো বলেছেন, তার দেশ আফগানিস্তান থেকে তাদের দূতাবাস খালি করবে না বা তাদের কার্যক্রম বন্ধ করবে না।

ব্রিটেন

ব্রিটেনের স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে যে গ্রীষ্মকালীন সময়ে দেশটির পার্লামেন্ট বন্ধ হওয়ার পর থেকেই প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আফগান সঙ্কট নিয়ে আলোচনা করার জন্য বিশেষ অধিবেশনের ডাক দিতে চাচ্ছেন। পার্লামেন্টে আলোচনার মাধ্যমেই সিদ্ধান্ত নেয়া হবে যে আফগানিস্তান নিয়ে ব্রিটেন কি করবে। এপি ও স্কাই নিউজ এসব তথ্য জানিয়েছে।

উল্লেখ্য যে আফগান যুদ্ধে গত দু’দশকে ব্রিটেনের চার শ’ ৫৭ সৈন্য নিহত হয়েছে।

ভারত

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেছেন, আফগানিস্তানে ভারতের দূতাবাস বন্ধ করা হবে না। কিন্তু, আফগানিস্তানের কাবুলে অবস্থিত ভারতীয় কর্মকর্তারা দ্রুততার সাথে দূতাবাস খালি করার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছেন।

সূত্র : আলজাজিরা

No comments

Theme images by PLAINVIEW. Powered by Blogger.