ভারতের গোপন সামরিক ঘাঁটি নির্মাণ হচ্ছে মরিশাসে

 



‘আমরা একটি বিমানবন্দর আর হাসপাতাল চেয়েছিলাম। কিন্তু এত বড় বিমানবন্দর আমরা চাইনি। এই বিমানবন্দর দেখলে আমরা শঙ্কিত হই।’ কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরাকে, কথাগুলো বলছিলেন ফ্রান্সো পৌলে নামের এক ব্যক্তি। তিনি মরিশাসের আগালেগা দ্বীপের বাসিন্দা। দ্বীপটিতে তিন শ বা তার কিছু কম-বেশি মানুষের বাস। তারা সবাই ওই বিমানবন্দর নিয়ে ভীত-শঙ্কিত। 

আল-জাজিরার একটি বিশেষ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে বিমানবন্দরটি মূলত ভারতীয় সেনাদের জন্য নির্মাণাধীন সামরিক ঘাঁটি। গোপনে তারা এটা নির্মাণ করছে। ভারত সরকার সেখানে গোপনে একটি নৌ-ঘাঁটি তৈরি করছে।
আগালেগার বাসিন্দারা এখন এই ভেবে আতঙ্কিত যে, সেখানে ভারতীয় সেনারা ঘাঁটি গাড়লে তাদের তাড়িয়ে দেওয়া হবে। আল-জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, তারা দেখেছে কী করে গত দুই বছর ধরে তিন কিলোমিটারের একটি রানওয়ে নির্মাণ করেছে ভারত। একই সঙ্গে তারা সেখানে বেশ বড়সড় দুইটি জেটির নকশাও তৈরি করেছে। যা মূলত সামরিক কাজে ব্যবহার করা হবে।  
সামরিক বিশ্লেষকেরা তাদের অনুসন্ধানী তথ্যের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বলে দাবি আল-জাজিরার। সামরিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, দ্বীপটি সম্ভবত ভারতীয় নৌবাহিনী সামুদ্রিক গোয়েন্দা এবং শত্রুপক্ষের ওপর নজরদারির কাজে ব্যবহার করবে। 
২০১৮ সালের দিকে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে ভারতের এই গোপন সামরিক ঘাঁটির বিষয়ে খবর বের হয়। কিন্তু মরিশাস ও ভারত দুই দেশের পক্ষ থেকেই এই নির্মাণ প্রকল্প সামরিক কাজে ব্যবহৃত হওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে। দুই দেশ তখন দাবি করেছিল এসব অবকাঠামো সেখানকার বাসিন্দাদের সুবিধার জন্য নির্মাণ হচ্ছে। 

No comments

Theme images by PLAINVIEW. Powered by Blogger.