মাজার ই শরিফও দখল নিয়েছে তালেবান

 

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় কৌশলগত গুরুত্বপূর্ণ শহর মাজার ই শরিফের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেছে তালেবান। গত কয়েক দিন ধরে আফগান সেনাবাহিনী শহরটি রক্ষার জন্য কঠোর প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল এবং দু’পক্ষের মধ্যে তীব্র সংঘর্ষ চলছিল।শেষ পর্যন্ত গতকাল (শনিবার) বিকেলে তালেবানের হাতে শহরটির পতন হয়।

এর ফলে ৬ আগস্টের অভিযানর পর আফগানিস্তানের ৩৪টি প্রদেশের মধ্যে ২২টিই তালেবানের নিয়ন্ত্রণে চলে এলো। পশ্চিমা-সমর্থিত সরকারের হাতে এখন কাবুলসহ বিচ্ছিন্নভাবে থাকা কয়েকটি এলাকার নিয়ন্ত্রণ বজায় থাকল।

তালেবান মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ এক টুইটার বার্তায় ঘোষণা করেন, তারা আফগানিস্তানের বল্‌খ প্রদেশের রাজধানী মাজার শরিফের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন। আফগানিস্তানের চতুর্থ বৃহত্তম শহর হিসেবে পরিচিত মাজার শরিফ ই তালেবানের হাতে চলে যাওয়ায় আফগানিস্তানের গোটা উত্তরাঞ্চলের ওপর এই গ্রুপের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার কাজ সহজ হলো। এখন দেশটির মধ্য ও উত্তরাঞ্চলের অবশিষ্ট এলাকার নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখা কাবুল সরকারের জন্য কঠিন হয়ে পড়বে।

এর আগে গত কয়েক দিনে আকস্মিকভাবে তালেবান আফগানিস্তানের বিস্তীর্ণ এলাকা দখল করে নেয়। এরইমধ্যে তারা আফগানিস্তানের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বৃহত্তম শহর হেরাত ও কান্দাহারের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেছে। তারা রাজধানী কাবুলের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে বলেও কোনো কোনো সূত্র খবর দিয়েছে।

আফগানিস্তানের মোট ৩৪ প্রদেশের মধ্যে বর্তমানে ২২ প্রদেশের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে রয়েছে। রাজধানী কাবুলসহ দেশের পূর্ব ও মধ্যাঞ্চলের কিছু প্রদেশ কেবল বর্তমানে পশ্চিমা সমর্থিত আফগান সরকারের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি গত বুধবার মাজার ই শরিফ শহর পরিদর্শনে গিয়ে সেখানকার কয়েকজন সেনা কমান্ডারের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন।

মাজার ই শরিফ আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় সবচেয়ে জনবহুল শহর এবং উত্তর আফগানিস্তানের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত। মহাসড়ক ও রেলপথে প্রতিবেশী উজবেকিস্তানের সাথে বাণিজ্যিক যোগাযোগ এই শহরের মাধ্যমেই হয়ে থাকে।

এদিকে তালেবান দাবি করেছে, তারা শনিবারই আফগানিস্তানের আরো তিনটি প্রদেশ পাকতিয়া, পাকতিকা ও কুনারের রাজধানী দখল করে নিয়েছে। শনিবার আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় ফারিয়াব প্রদেশের রাজধানী মায়মানায় সেনাবাহিনীর সঙ্গে তালেবানের তুমুল যুদ্ধ হয়। এই শহরেরও নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করার দাবি করেছে তালেবান।
সূত্র : আল জাজিরা 

No comments

Theme images by PLAINVIEW. Powered by Blogger.