Header Ads

মধ‍্যযুগের উজ্জ্বল নক্ষত্র ইবনে খালদূনের ও স্মরণদিবস পালন তুরস্কে



ইস্তাম্বুল|

মধ‍্যযুগের স্বনামধন্য ঐতিহাসিক , দার্শনিক এবং সমাজ বিজ্ঞানের অগ্রদূত আব্দুর রহমান ইবনে খলদূন রহঃ এঁর ৬৬৮ তম জন্মদিনে তাঁর স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হল তুরস্কে। এসংবাদ জানিয়েছে আনাদোলু এজেন্সি।

তুরস্কের ইস্তাম্বুলে অবস্থিত ইবনে খলদূন বিশ্ববিদ্যালয়ে এদিন উক্ত মুসলিম মনীষীকে নিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। এখানে জ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় ইবনে খালদুনের অবদান নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

এই আলোচনা সভায় অন‍্যান‍্য বিশিষ্টজনদের সাথে সাথে বক্তব্য রাখেন উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট রজব সেনতুর্ক।

এদিন বক্তব্য রাখার সময় রজব সেনতুর্ক ইবনে খালদুনের গুরুত্ব বর্ণনা করতে গিয়ে জানান যে, মুসলিম দার্শনিক  ইবনে খলদূন কেবলমাত্র সমাজবিজ্ঞানের অগ্রদূত নন , কারণ কেবলমাত্র সমাজবিজ্ঞানের অগ্রদূত হিসেবে পরিচয় দিলে তাঁর মতো জ্ঞানের সাগরকে ছোট করা হয়। তিনি বলেন,

"যাঁরা এই সিম্পোজিয়ামে কথা বলবেন তাঁরা কেবল ইবনে খালদুনের প্রশংসা করবেন না বা তাঁর জীবন ও চিন্তাভাবনা নিয়ে কথা বলবেন না, তাঁরা তাঁর ধারণা, তত্ত্ব ও পদ্ধতিগুলি খালদুনবাদী দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষণ করবেন।  তারা দেখিয়ে দেবেন যে ইবনে খালদুন কীভাবে এখনও আমাদের আধুনিক বিশ্বের অর্থনীতি, রাজনীতি, ধর্ম এবং সংস্কৃতি বুঝতে এবং যে দিকগুলিতে তার দৃষ্টিভঙ্গি অন্যদের তুলনায় আরও শক্তিশালী তা দেখাবেন ”।

উল্লেখ্যঃ চতুর্দশ শতকের এই মহান বিদ‍্যারসাগর জ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বড় অবদান রেখেছেন। তাঁর লেখা বিশ্ববিখ্যাত গ্রন্থ 'কিতাবুল এবার' যা তারীখু ইবনে খলদূন নামে পরিচিত তা হল ইতিহাসের অন্যতম আকর গ্রন্থ। কয়েকটি খন্ডে বিভক্ত এই ইতিহাস গ্রন্থের ভূমিকাটাই প্রথম খন্ড যা মুকাদ্দামাতু ইবনে খালদুন নামে পরিচিত।

© টি আর টি বাংলা ডেস্ক 

No comments

Theme images by PLAINVIEW. Powered by Blogger.